1. tarekahmed884@gmail.com : adminsonali :
শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ০১:২৩ অপরাহ্ন
Title :
জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় কর্মসূচি এর অংশ হিসেবে সম্মানিত রোজাদারগণের মধ্যে ইফতার বিতরণ এইচএসসি শুরু হতে পারে ৩০ জুন, ফরম পূরণ ১৬ এপ্রিল থেকে আলুর দাম বাড়ছে, এবার মৌসুম শেষ হওয়ার আগেই কেন বাজার চড়া এবার ঢাকার বাজারেও পেঁয়াজের বড় দরপতন পবিত্র রমজানে কলেজ খোলা কত দিন সার্বিক উন্নয়নে নারী-পুরুষের সমান অংশগ্রহণ প্রয়োজন: প্রধানমন্ত্রী সুবিধাবঞ্চিত পরিবারের মধ্যে নগদ ৬ হাজার টাকা করে তুলে দিচ্ছেন পাইলগাঁও ইউপি চেয়ারম্যান হাজী মোঃ মখলুছ মিয়াসহ অতিথিরা পূবালী ব্যাংক যোগীডহর শাখা মৌলভীবাজার সি. আর. এম. বুথ এর শুভ উদ্বোধন। কাল থেকে কার্যকর হবে সয়াবিন তেলের নতুন দাম শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা পাবেন অনুদান, নগদে যাবে অর্থ, আবেদন করেছেন

ভুলে যাওয়া স্বাদের টি-টোয়েন্টিতে ভুলে যাওয়ার মতো ম্যাচ বাংলাদেশের

  • Update Time : শুক্রবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৫১১ Time View

দৈনিক মৌলভীবাজার সোনালী কণ্ঠ নিউজ ডট কম

বাংলাদেশের মাটিতে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের ‘ভুলতে বসা প্রচলিত’ স্বাদটা পাওয়া গেল আজ। বল ব্যাটে এল ব্যাটসম্যানদের, রান হলো, পেসারদের গতি দেখা গেল, স্পিনাররাও মাথা খাটিয়ে বোলিং করে উইকেটের দেখা পেলেন, দেখা গেল দারুণ সব ফিল্ডিং। তবে এত কিছুর ভিড়ে সিরিজের শেষ ম্যাচটা ভুলে যাওয়ার মতো হলো বাংলাদেশের। ১৬২ রান তাড়ায় শুরুতেই খেই হারানোর পর আফিফ হোসেনের ব্যাটে রোমাঞ্চ মিললেও যথেষ্ট হয়নি সেটা। ২৭ রানে হেরে সিরিজ শেষ করতে হয়েছে বাংলাদেশকে, আর নিউজিল্যান্ড পেয়েছে দারুণ জয়।

একাদশে চারটি পরিবর্তন এলেও ওপেনিং জুটি ছিল একই। সব মিলিয়ে লিটন দাস ও মোহাম্মদ নাঈমের জন্যই তো বিশ্বকাপ থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন তামিম ইকবাল! প্রথম ইনিংসে নিউজিল্যান্ডের ব্যাটিং আশাও জুগিয়েছিল নিশ্চয়ই দুজনকে। তবে জ্বলে উঠতে পারেননি দুজনের কেউই। প্রথম ৪ ওভারে উঠেছে ২৪ রান, এরপর এজাজ প্যাটেলকে ক্রিজ ছেড়ে বেরিয়ে এসে মারতে গিয়ে পয়েন্টে লিটন ধরা পড়েছেন ১২ বলে ১০ রান করে। উইকেটের গতির সঙ্গে যেন মানিয়েই নিতে পারছিলেন না তিনি।

সিরিজের ৫ ম্যাচে চতুর্থ ব্যাটসম্যান হিসেবে ৩ নম্বরে খেলতে এলেন এ ম্যাচেই প্রথমবার নামা সৌম্য। ফেরাটা সুখকর হয়নি তাঁর। কোল ম্যাকনকিকে কাট করতে গিয়ে গুলিয়ে ফেলে ক্যাচ তুলেছেন, পয়েন্টের সামনে ডাইভ দিয়ে সেটা দারুণভাবে নিয়েছেন রাচিন রবীন্দ্র। পরের ওভারে বেন সিয়ার্সের গতির কাছে হার মেনে কট বিহাইন্ড হয়েছেন ২৩ বলে ২১ রান করা নাঈম। হতাশার সিরিজের শেষটাও এরপর হতাশা দিয়েই শেষ হয়েছে মুশফিকের, ৮ বলে ৩ রান করে রবীন্দ্রকে তুলে মারতে গিয়ে লং-অফে ধরা পড়েছেন তিনি। সিরিজে ৫ ইনিংসে মুশফিক দুই শূন্যসহ করলেন মাত্র ৩৯ রান। খেলেছেন ৭৫ বল। টি-টোয়েন্টিতে এতটা বাজে স্ট্রাইকরেট নিয়ে একাধিক ম্যাচের সিরিজ শেষ করেননি মুশফিক।

ওপেনিং জুটিতে তেমন কিছু করতে পারেননি লিটন-নাঈম

নবম ওভারে ৪৬ রানে ৪ উইকেট হারানো বাংলাদেশকে এরপর উদ্ধারের চেষ্টা করেছেন মাহমুদউল্লাহ ও আফিফ। শেষ ৯ ওভারে বাংলাদেশের প্রয়োজন ছিল ১০৮ রান, এরপরের ৪ ওভারে উঠল ৫০ রান। সিয়ার্স, রবীন্দ্র, ম্যাকনকি, প্যাটেল—সবার ওপরই চড়াও হয়েছিলেন আফিফ ও মাহমুদউল্লাহ।

তবে ১৬তম ওভারের শেষ বলে স্কট কুগালাইনের বলে কাভারে মাহমুদউল্লাহ ক্যাচ তোলার পরই মূলত লড়াই থেকে অনেকটা ছিটকে গেছে বাংলাদেশ।

এরপর নুরুল হাসান বা শামীম হোসেনও তেমন কিছু করতে পারেননি। শেষ পর্যন্ত ৩৩ বলে ৪৯ রান করে অপরাজিত ছিলেন আফিফ, ২টি চারের সঙ্গে মেরেছেন ৩টি ছয়। অন্যদিকে ৬ কিউই বোলারের সবাই পেয়েছেন উইকেটের দেখা।

চতুর্থ ম্যাচ জিতে সিরিজ জয় নিশ্চিত করার পর আজ সিরিজের শেষ ম্যাচে বাংলাদেশ একাদশের সঙ্গে মিরপুরের শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের উইকেটেও আসে বড় পরিবর্তন। সাকিব আল হাসান, মোস্তাফিজুর রহমান, মেহেদী হাসান ও মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনকে ছাড়াই নেমেছিল বাংলাদেশ। ফলে বাংলাদেশ দলের বোলিং আক্রমণ হয়ে যায় কার্যত তিন বোলারকেন্দ্রিক।

ফিন অ্যালেনকে ফিরিয়ে শরীফুল ইসলামের উল্লাস

অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড সিরিজের টানা ৯ ম্যাচ পর আজ পেস দিয়ে বোলিং শুরু করেন মাহমুদউল্লাহ। নতুন বল হাতে পেয়ে তাসকিনও গতির ঝড় তোলেন। দুই ওভারের প্রথম স্পেলে মাত্র ৭ রান দেন তিনি। এর মধ্যে স্পিডোমিটারে একবার ঘণ্টায় ৯০ মাইলও পেরোতে দেখা গেছে।

তবে একটু ব্যাটিং সহায়ক উইকেট বাংলাদেশের বাকি দুই বিশেষজ্ঞ বোলার খুব একটা পছন্দ করছিলেন না। শরীফুল ও নাসুম দুজনই ব্যাটিং পাওয়ার প্লেতে ছিলেন খরুচে। কিউই ওপেনার ফিন অ্যালেন আজ হাত খুলে খেলার স্বাধীনতা পেয়েই যেন তেতে ওঠেন। পাওয়ার প্লের প্রথম ৫.৩ ওভারেই নিউজিল্যান্ড তোলে ৫৮ রান।

পাওয়ার প্লের শেষ ওভারের চতুর্থ বলে সাইফউদ্দিনের শর্ট বলে ক্যাচ তুলে আউট হন রবীন্দ্র। পরের বলে রিভিউ নিয়ে এলবিডব্লুর হাত থেকে বাঁচলেও অবশ্য শেষ বলে গিয়ে ঠিকই বোল্ড হন অ্যালেন। সে জুটি অবশ্য ৫৬ রানই বাড়তি পেয়েছে। নাসুমের প্রথম বলেই ক্যাচ দিয়েছিলেন রবীন্দ্র, তবে শামীম মিড উইকেট বাউন্ডারিতে ছেড়েছিলেন সহজ ক্যাচ।

৩৭ বলে ৫০ রানের ইনিংসে নিউজিল্যান্ডকে ১৬১ পর্যন্ত নিয়ে গেছেন অধিনায়ক টম ল্যাথাম

অ্যালেন-রবীন্দ্রর উইকেটের পর মাঝের ওভারে অবশ্য নিউজিল্যান্ডের রানের গতি কমাতে সক্ষম হয় বাংলাদেশ দল। অনিয়মিত বোলাররাও এই সময়টা ভালো বোলিং করেন। মাহমুদউল্লাহ নিজের পর আনেন আফিফ, সৌম্য, শামীমকেও। উইল ইয়াংকে কট-বিহাইন্ড করে সফলও হন আফিফ। এরপর বোলিংয়ে ফিরে সিরিজে টানা চতুর্থবারের মতো কলিন ডি গ্র্যান্ডহোমকে ফেরান নাসুম, ৮৩ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে ফেলে নিউজিল্যান্ড।

এরপর সমানসংখ্যক বলে ৩৫ রানের জুটিতে নিউজিল্যান্ডকে আরেক দফা ভালো স্কোরের ভিত এনে দেন অধিনায়ক ল্যাথাম ও হেনরি নিকোলস। ১৭তম ওভারে তাসকিনের ওয়াইড ইয়র্কারে নিকোলস নুরুল হাসানের দারুণ ক্যাচে পরিণত হলে ভাঙে সে জুটি। অবশ্য শেষ দিকে গিয়ারটা ভালোভাবে বদলেছেন ল্যাথাম। তাসকিনের করা ১৯তম ওভারে দুটি ছয় ও একটি চার মেরে ১৮ রান তোলেন তিনি। শেষ ওভারে পূর্ণ করেন সিরিজে তাঁর দ্বিতীয় ফিফটিও। শেষ পর্যন্ত তাঁর ৩৭ বলে ৫০ রানের ইনিংসেই নিউজিল্যান্ড গড়ে সিরিজে সর্বোচ্চ স্কোর।

 

বিজ্ঞাপন বিজ্ঞাপন বিজ্ঞাপন

Open photo    Open photo

বিজ্ঞাপন বিজ্ঞাপন বিজ্ঞাপন

Open photo   Open photo

বিজ্ঞাপন বিজ্ঞাপন বিজ্ঞাপন

Open photo   Open photo

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 SonaliKantha
Theme Customized By BreakingNews