1. tarekahmed884@gmail.com : adminsonali :
শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ১০:০১ পূর্বাহ্ন

স্ত্রী, ভাই, ভাবি, শ্যালক বাদ যাননি কেউই

  • Update Time : সোমবার, ৮ নভেম্বর, ২০২১
  • ৬৩২ Time View

দৈনিক মৌলভীবাজার সোনালী কণ্ঠ নিউজ ডট কম

রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থ ও হিসাব বিভাগের পরিচালক গোলাম সরোয়ার। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগ দেওয়ার পর তাঁর ভগ্নিপতি হয়েছেন সেকশন কর্মকর্তা। এক ফুফাতো ভাই স্টোর কর্মকর্তা, আরেকজন গাড়িচালক, ভাতিজিজামাই প্রশাসনিক কর্মকর্তা। বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিকল্পনা ও উন্নয়ন বিভাগের সহকারী পরিচালক শিবলী মাহবুবও কম যান না। তাঁর স্ত্রীও একই বিশ্ববিদ্যালয়ে সেকশন কর্মকর্তার চাকরি পেয়েছেন। শ্যালক হয়েছেন চিত্রগ্রাহক।

শুধু এই দুই কর্মকর্তাই যে নিজেদের স্বজনদের চাকরি দিয়েছেন, তা নয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগীত বিভাগের প্রভাষক রওশন আলমের বড় ভাই, ভাবি, চাচাতো ভাইও সেখানে চাকরি পেয়েছেন।

এই তিনজনের সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার সোহরাব আলী। বিশ্ববিদ্যালয়ের চারজনের এই জোট বেশির ভাগ নিয়োগ নিয়ন্ত্রণ করেন। আত্মীয়স্বজনের বাইরে নিজ নিজ এলাকার মানুষকে অর্থের বিনিময়ে চাকরি দিয়েছেন, এমন অভিযোগও রয়েছে তাঁদের বিরুদ্ধে।

অবশ্য রওশন আলমের দাবি, শাহজাদপুর এলাকার অন্য অনেকের মতো তাঁর পরিবারের লোকদেরও চাকরি হয়েছে।

প্রতিষ্ঠার পর গত ৪ বছরে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে ৫৫ জন কর্মকর্তা ও ১৪৪ জন কর্মচারী নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের স্মৃতিবিজড়িত সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপিত হয় ২০১৫ সালের ৮ মে। ২০১৭-১৮ শিক্ষা বছরে পাঠদান শুরু হয়। মোট শিক্ষার্থী ৩৯৬ জন। তবে বিশ্ববিদ্যালয়টিতে এখনো কোনো স্থায়ী ক্যাম্পাস ও অবকাঠামো নির্মিত হয়নি। অস্থায়ী ও ভাড়া করা ভবনে চলছে কার্যক্রম।

বিশ্ববিদ্যালয়টির কয়েকজন শিক্ষক ও কর্মকর্তা প্রথম আলোকে বলেন, রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন পদে প্রথমে অস্থায়ী (অ্যাডহক) ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হয়। পরে পছন্দের প্রার্থীর জন্য প্রয়োজনে বিজ্ঞপ্তিতে প্রার্থীর বয়স, অভিজ্ঞতা ও শিক্ষাগত যোগ্যতার শর্ত শিথিল করে তাঁদের স্থায়ী নিয়োগ দেওয়া হয়।

চাকরি পেয়েছেন আ.লীগ নেতাদের স্বজনেরাও

স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের স্বজনেরাও বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন পদে চাকরি পেয়েছেন।

শাহজাদপুরের সাবেক সাংসদ প্রয়াত হাসিবুল রহমানের ভাতিজিজামাই কোরবান আলী ও ভায়রার মেয়ে সাদিয়া জাবিন সেকশন কর্মকর্তা পদে নিয়োগ পেয়েছেন। শাহজাদপুর উপজেলার চেয়ারম্যান আজাদ রহমানের ছেলে মাহমুদুর রহমান কম্পিউটার অপারেটর কাম অফিস সহায়ক পদে চাকরি করছেন। উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক আশিকুল হকের স্ত্রী জান্নাতুন নাঈম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক কর্মকর্তা। সিরাজগঞ্জের সলঙ্গা থানা ছাত্রলীগের সাবেক নেতা সাজেদুল ইসলাম নিরাপত্তা কর্মকর্তা এবং মারুফ হাসান সেকশন কর্মকর্তা। মারুফের স্ত্রী সাদিয়া জেবিনও সেকশন কর্মকর্তা। উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মারুফ হোসেনের ছোট ভাই সোহাগ কম্পিউটার অপারেটর।

বিজ্ঞাপন বিজ্ঞাপন বিজ্ঞাপন

Open photo   Open photo

বিজ্ঞাপন বিজ্ঞাপন বিজ্ঞাপন

Open photo   Open photo

বিজ্ঞাপন বিজ্ঞাপন বিজ্ঞাপন

Open photo   Open photo

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 SonaliKantha
Theme Customized By BreakingNews